তারেক জিয়ার নির্দেশে ফরিদগঞ্জে ধান পুড়িয়ে বিক্ষোভকারী কৃষকদের আর্থিক অনুদান প্রদান করলেন আলহাজ্ব এম এ হান্নান

এমরান হোসেন লিটনঃ ন্যায্য মূল্যে দাম না পেয়ে কৃষি অধিদপ্তরের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করে ধান পুড়িয়ে ফেলা বিক্ষোভকারী কৃষকদের নগদ অর্থ প্রদান করলেন ফরিদগঞ্জের বিশিষ্ট শিল্পপতি ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য এবং মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম এ হান্নান।আর্থিক অনুদান গ্রহণকারী ৫জন কৃষকই ফরিদগঞ্জের ১৫ নং রূপসা উত্তর ইউনিয়নের বাটের রদ গ্রামের ৫/৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ শফিকুর রহমান,পিতা ইউসুফ আলী।  

মোহাম্মদ লাল মিয়া পিতা মৃত মোঃ আমিন।মোঃ মিজানুর রহমান খান পিতা মৃত মোঃ সাহাদাত উল্যা খান।মোঃ আলম পিতা মৃত মোহাম্মদ নূর মোহাম্মদ।মোঃ শাহজাহান পিতা আব্দুর রব।আর্থিক অনুদান প্রদানের আগমুহূর্তে এরা এক প্রশ্নের জবাবে জানান, মূলত, প্রতিমণ ধান উৎপাদন করতে এদের খরচ হয়েছে নয়শত টাকা হতে নয়শত ৫০ টাকা। কিন্তু ধান বিক্রি করতে গেলে দেখা যায় বাজারদর মাত্র ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। পরে তারা কৃষি অধিদপ্তর ফরিদগঞ্জে গেলে সেখানেও আশানুরূপ কোন দর না পেয়ে ক্ষোভে নিজের উৎপন্ন করা ধান পুড়িয়ে ফেলে।

অন্যদিকে অনুদান প্রদানকারী আলহাজ্ব এম এ হান্নান জানান, তিনী পবিত্র হজ পালন করে দেশে আসলে পরে বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার সাথে তার যোগাযোগ ও কুশল বিনিময় হয়।এবং তিনিই তাকে এই কৃষকদের বিষয়ে অবগত করেন। তারেক জিয়া  বিষয়টি লন্ডনে পত্রিকা মারফত জেনেছেন। এবং তিনি বলেছেন এই কৃষকদের ডেকে এনে সান্ত্বনা দেওয়ার জন্য এবং আগামী দিনে কৃষি কাজে উৎসাহিত হওয়ার জন্য আর্থিক অনুদান দিতে।

তাই তাদের প্রত্যেককে আর্থিক অনুদান দিলাম। আলহাজ্ব এম এ হান্নান তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন  তারেক স্যার সত্যিই মহান। তিনি সেই লন্ডন থেকে ও অামাদের ফরিদগঞ্জের সাধারণ কৃষকদের খবর রাখেন। তিনি সে সময় তারেক জিয়ার আসু সুস্বাস্থ্য কামনা করেন। এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি কামনা করেন।

No comments

Powered by Blogger.