পাংশায় আদিবাসীদের জমি দখল করে বালু ভরাটসহ প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ




 নিজেস্ব প্রতিনিধি রাজবাড়ী\ রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের নারায়নপুর এলাকার আওতাধীন আদিবাসী ৯০ বছর বয়স্কা বিধবা মহিলার জমি দখল করে বালু ভরাটসহ জমির চারপাশে টিনের প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রভাবশালী একটি চক্রের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় আদালত স্থিতাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দিলেও রাতের আঁধারে ভবন নির্মাণের উদ্দেশ্যে মাটি ভরাট ও প্রাচীর নির্মাণ করছেন প্রতিপক্ষ। অসহায় আরতী রানী সরদারের সন্তান অজয় সরদার আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পাংশা মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। এরপরও নির্মাণ কাজ বন্ধ করছেন না প্রভাবশালী প্রতিপক্ষ। আরতী রানী সরদার প্রায় ৮০/৯০ বছর যাবত এই ১২ শতাংশ জমির হাল সনের খাজনা পরিশোধ পূর্বক ভোগদখল করে আসিতেছেন। যার মৌজা : নারায়নপুর, জেএলনং-১৯১,খতিয়ান নং-৭৫৪,দাগ নং-৬৮১,জমির পরিমান ১২ শতাংশ। ঐ আদিবাসী মহিলা অতিসয় দরিদ্র বিধায় জমিতে তেমন কোন ঘরবাড়ী নির্মাণ করিতে পারেন নাই। শহরের মধ্যে খালি জায়গা পেয়ে জবর দখল চক্রটি ক্ষমতা আর গায়ের জোরে অসহায় মহিলার জমিটুকু দখল করছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। বিগত ২০১৬ইং সালে প্রথমে একবার এই দখলবাজ চক্রটি আরতী রানী সরদারের জমিটুকু দখলের চেস্টা চালায়। বিষয়টি নিয়ে আরতী রানী সরদারের ছেলে পাংশা থানায় একটি ডাইরী করেন। ডাইরী নং-৯৫৫,তারিখ: ৩০/১২/১৬ইং। ফলে দখলবাজ কোপেন শেখ পিতা: মৃত বদরুদোজা গং নামক চক্রটি দখল করা থেকে বিরত থাকেন। দখলবাজ কোপেন শেখ জমিটুকু দখলে নেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন যাবত পায়তারা করছে। পাংশা পৌর সভার মধ্যে আরতী রানী সরদারের ১২ শতাংশ জমি নিয়ে প্রভাবশালী কোপেন শেখ পিং বদরুদোজা গংদের সঙ্গে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলছে। ভাড়াটিয়া খুনিদের দিয়ে আরতী রানী সরদারের সন্তাদেরকে খুন-জখম কিংবা হত্যার মত ঘটনা ঘটিয়ে জমি তারা দখলে নিবেন মর্মে বরংবার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে মহর নামক ব্যাক্তি দাবী করেন।

ঘটনারদিন গত ১৯ শে আগষ্ট/১৯ইং তারিখ, রোজ সোমবার ভোর রাত্রে কোপেন শেখ ভারাটিয়া লোকজন নিয়ে জমিতে মাটি ভরাটের কাজ শুরু করেন। খবর পেয়ে আরতী রানী সরদারের ছেলে অজয় সরদার ঘটনাস্থলে গিয়ে ভরাট কাজে বাধা দিলে তাকে হত্যা করার হুমকি দেন প্রতিপক্ষরা। এ ঘটনায় অজয় সরদার বাদী হয়ে পাংশা থানায় গত ১৯/০৮/১৯ইং তারিখে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পাওয়ার পরও পাংশা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রদান করেন নাই।এমনকি এ ব্যাপারে কোন আইনি পদক্ষেপ গ্রহন করেন নাই বলে অভিযোগকারী জানান। অভিযোগকারী অজয় কুমার আরো বলেন, থানার মধ্যে ডিউটি অফিসারের পাশেই কর্মরর্ত এক পুলিশ তার অভিযোগটি লিখে দেন এবং ৫০০টাকা নেন। ওসি সাহেব থানায় নেই, ওসি সাহেব আসার পর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে ডিউটি অফিসার তাকে জানায়। এই ব্যাপারে পাংশা থানার ওসি’র মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি ঘটনাটি জানেন না বলে জানান।

উল্লেখ্য, এই জমি সংক্রান্ত বিষয় রাজবাড়ী পাংশা সহকারী জজ আদালতে প্রতিপক্ষ দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন। মামলায় তারা হেরে যান। মামলার রায় আরতী রানী সরদারের পক্ষেই হয়েছে। পরবর্তীতে রায়ের বিপক্ষে প্রতিপক্ষ পূনরায় হাইকোটে সিভিল রিভিশন মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর- ৪৬৭২অফ ২০১১,। আদালত শান্তি-শৃখলা ভঙ্গের আশংকায় জমিতে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দেন। কিন্ত কোনো নির্দেশই মানছেন না দখলকারীরা। তারা তাদের দায়ের করা মামলায়, আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে রাতের আঁধারে জমিতে বালু ভরাটসহ টিনের প্রাচীর নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলে অভিযোগকারীরা অভিযোগ করেন।
প্রতিনিধিঃ আবুল কালাম আজাদ



No comments

Powered by Blogger.