মশা দিয়ে মশা মারার কৌশল Killing Mosquito Tips


এডিস মশা নিধনে বিজ্ঞানীদের সফল পরীক্ষা এখন বাস্তবায়ন হচ্ছে বিভিন্ন দেশে ভারত শ্রীলংকা ইন্দোনেশিয়া আশেপাশের দেশগুলোতে কাজ এসেছে অভিনব কৌশল। ফুল ফুটালি সংক্রমণ হচ্ছে প্রাণঘাতী টেন্ডু আফ্রিকায় জন্ম নিয়া এডিস মশা এখন ছড়িয়ে পড়ছে গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকায় সেইসাথে মশার ওষুধের বিরুদ্ধে বেড়েছে এর প্রতিরোধ ক্ষমতা। মারাত্মক হয়ে ওঠা এই মশা নিধনে তাই মাঠে নেমেছেন বিজ্ঞানীরা।

 15 বছরের গবেষণায় world mosquito প্রোগ্রামের বিজ্ঞানীরা এর করেন ওবাকিয়া নামের একটি পদ্ধতি যেখানে ব্যবহার করা হয় ওবাকিয়া ব্যাকটেরিয়া। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন এই ব্যাকটেরিয়া থাকলে ডেঙ্গু ভাইরাস বাড়তে পারে না। ওবাকিয়ি ব্যাকটেরিয়া শরীরে থাকা মশার সাথে অন্য মশার প্রজনন এই যে মশার জন্ম নেয় তার দেহ থাকে একি ব্যাকটেরিয়া এতে প্রতিরোধ হয় ডেঙ্গু সংক্রমণ। সপ্তাহে একবার করে ১০ সপ্তাহ ধরে পরিবেশে এসব মশা ছাড়ায় কয়েক মাসেই মিলে শতভাগ সাফল্য। ২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়ায় এই পরীক্ষার পর ভারত শ্রীলংকা ইন্দোনেশিয়া সহ ১২ টি দেশে মিলেছে সফলতা।

 অস্ট্রেলিয়াতে এই পদ্ধতিতে ডেঙ্গু দমনে খরচ হয় জনপ্রতি প্রায় ১১০০ টাকা। তবে ঘনবসতি হওয়ার ব্রাজিল আর ইন্দোনেশিয়ায় তা কমে দাঁড়ায় ২৫৩ টাকা। বিজ্ঞানীদের সফল আরেকটি পদ্ধতি জেনেটিক্যালি মডিফায়েড বন্ধু মশা বা জিএম মশা এই পদ্ধতিতে জিণ ইঞ্জিনিয়ারিং করে মশার খোসে জেনেটিক পরিবর্তন আনা হয় যার ফলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বেঁচে থাকতে পারে না। প্রকৃতিতে ছেড়ে দেয়া এই জিএম মশার সাথে নারী এডিস মশার প্রজনন যেসব মশার জন্ম হয় সেগুলো দ্রুতই মরে যায় এতে কমে যায় এডিস মশা।অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরীতে ১৬ বছরের গবেষণায় এ ধরনের মশা উৎপাদনে সফল হন বৃটেনের অক্সিটের কোম্পানির বিজ্ঞানীরা ব্রাজিলে এই পদ্ধতির সফলতা ছিল ৯০ শতাংশ মাথাপিছু খরচ হয় প্রায় ৮৪৫ টাকা।

No comments

Powered by Blogger.